পরিবেশ রক্ষার্থে একদিন পর পর মলত্যাগের পরামর্শ

নানানভাবে পরিবেশ দূষণ হচ্ছে। মানুষের অসচেতনতা এর জন্য দায়ী। পরিবেশ রক্ষার্থে বিভিন্ন ধরনের পদক্ষেপ নেয়া হলেও তা ফলপ্রসু হচ্ছে না। তবে পরিবেশ রক্ষার জন্য এবার অন্যরকম পরামর্শ দিয়েছেন ব্রাজিলের রাষ্ট্রপতি জেইর বলসোনারো। তিনি মানুষকে একদিন পর পর মলত্যাগ করার পরামর্শ দিয়েছেন।

সম্প্রতি আমাজনে বন উজাড় বেড়ে যাওয়ার বিষয়টি সরকারি তথ্যে উঠে আসার পর বলসোনারো তোপের মুখে পড়েন। কয়েকদিন আগে এক সাংবাদিক তাকে জিজ্ঞেস করেছিলেন, কীভাবে পরিবেশকে রক্ষা করে কৃষির উন্নয়ন করা যায়। এ প্রশ্নের জবাবে এমন মন্তব্য করেন তিনি।
বন উজাড়ের বিষয়ে সরকারি প্রতিবেদন প্রকাশের পর ওই সংস্থার প্রধানকে বরখাস্ত করেন বলসোনারো। তার অভিযোগ, ওই ব্যক্তি সমস্যার পরিধি সম্পর্কে মিথ্যা বলেছে। এ বিষয়ক একটি প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে ওই সাংবাদিক বলেন, পৃথিবীতে গ্রীন হাউজ প্রভাবের এক চতুর্থাংশের জন্য দায়ী বন উজাড় ও কৃষিক্ষেত্র।

সাংবাদিকের এ কথায় বলসোনারো ওই মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, খানিকটা কম খাওয়া এক্ষেত্রে যথেষ্ট। আপনি পরিবেশ দূষণের বিষয়ে কথা বলছেন তো? সেক্ষেত্রে একদিন পর পর মলত্যাগ করলেই হবে। এটা পুরো বিশ্বের জন্যই ভালো ফলাফল বয়ে আনবে।
পরিবেশ বিজ্ঞানীরা বলছেন, গত জানুয়ারিতে বলসোনারো দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে ধীরে ধীরে ক্ষতির মুখোমুখি হচ্ছে অ্যামাজন। কারণ তার সরকার যে নীতি নিয়েছে সেগুলোতে পরিবেশ সংরক্ষণের চাইতে উন্নয়নকে গুরুত্ব দেয়া হয়েছে বেশি।

ব্রাজিলের মহাকাশ সংস্থার তথ্য থেকে দেখা গেছে, গত বছরের জুনে অ্যামাজনে যে পরিমাণ বনভূমি ধ্বংস করা হতো, এ বছরের জুনে, অর্থাৎ পুরো এক বছরের মাথায় এই বন উজাড়ের হার ৮৮% বৃদ্ধি পেয়েছে।

সরকারি পরিসংখ্যানগুলো বলছে, অ্যামাজনে গাছ কাটার সবচেয়ে বড় কারণ গবাদি পশুর জন্য নতুন চারণভূমি তৈরি করা। বিগত দশ বছর ধরে যেসব সরকার ক্ষমতা ছিল, তারা কেন্দ্রীয় সংস্থাগুলোর সম্মিলিত পদক্ষেপের মাধ্যমে এবং জরিমানার ব্যবস্থা করে বন উজাড় কমাতে সক্ষম হয়েছিল।

Facebook Comments